শাহরুখ খান ও হানিফ সংকেতের আলাপচারিতার দুষ্প্রাপ্য ছবি ভাইরাল

হানিফ সংকেত। ‘ইত্যাদি’ ছাড়াও ব্যক্তি হানিফ সংকেত আমজনতার কাছে পরম আস্থার একটি নাম। তবে এ মানুষটিকে ছাড়া ম্যাগাজিন অনুষ্ঠানটির একটি দৃশ্যও কল্পনা করা মুশকিল।

 

 

হয়তো অনেক দৃশ্যেই সশরীরে হানিফ সংকেত থাকেন না, কিন্তু নিয়মিত দর্শক ভালো করেই জানে, দৃশ্যটার নেপথ্যে আছে একটা পরিণত মস্তিষ্ক। সেই মস্তিষ্ক থেকেই বের হয় ছন্দোময় সব সংলাপ। দর্শক যতক্ষণ ‘ইত্যাদি’ দেখে, আদতে ততক্ষণ তারা হানিফ সংকেতকেই দেখে। এ কারণেই ‘ইত্যাদি’ আর হানিফ সংকেত একে অন্যের পরিপূরক। গত ৫০ বছরে বাংলাদেশের টিভিতে কত ধরনের অনুষ্ঠান এল-গেল, ‘ইত্যাদি’ ঠিকই রয়ে গেল।

 

 

১৯৮৯ সালের মার্চে প্রচারিত হয় ‘ইত্যাদি’র প্রথম পর্ব। শুরুর দিকে প্রচারিত হতো মাসে দুইবার। বিটিভির প্যাকেজ যুগের প্রথম প্যাকেজ ম্যাগাজিন অনুষ্ঠানও ‘ইত্যাদি’। ৩২ বছরে কত কিছুর বদল হলো- স্যাটেলাইট যুগ এলো, এলো ইউটিউব-ওটিটির যুগ। মুঠোফোনের কল্যাণে হাতের মুঠোয় বিনোদন দুনিয়া নিয়ে বসে আছে দর্শক, তবু ‘ইত্যাদি’র আবেদন এতটুকু কমেনি তাদের কাছে।

 

 

হানিফ সংকেত তার দর্শকদের জন্য প্রতিনিয়তই নতুন কিছু তুলে নিয়ে আসতে চেয়েছেন এবং সেটা পেরেছেন। ১৯৯৫ সালে বলিউড সিনেমা ‘দিলওয়ালে দুলহানিয়া লে জায়েঙ্গে’ তুমুল জনপ্রিয়তা পায়। একই সঙ্গে এই ছবিটি দিয়ে লাইমলাইটে চলে আসেন বলিউডের কিং খান খ্যাত অভিনেতা শাহরুখ খান। এরপরে পর থেকে শাহরুখের জনপ্রিয়তায় আর ভাটা পরেনি।

 

 

সেসময় হানিফ সংকেত তার ‘ইত্যাদি’ দর্শকদের জন্য শাহরুখ খানের একটি সাক্ষাৎকার নিয়েছেন। আর সেটি ১৯৯৬ সালে ‘ইত্যাদি’র একটি পর্বে দেখানো হয়। এতো বছর পরেও হানিফ সংকেত এবং শাহরুখ খানের সেই একটি ছবি ভাইরাল হয়েছে। যা দেখে রীতিমতো আগেবপ্লুত তাদের ভক্তরা।

About admin

Check Also

সিনেমার ট্রেলার নিয়ে সমালোচনার কড়া জবাব দিলেন ঝন্টু

‘যারা ট্রেলার দেখেই সমালোচনায় মেতেছেন তারা সিনেমার কি বুঝে? তারা সিনেমার ব্যাকরণ কিছু জানে? ট্রেলার …

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *